প্রতি বছর যখন রমজান মাস আসে, এটি সর্বশক্তিমান আল্লাহর স্মরণ, কৃতজ্ঞতা, ভালবাসা, যত্ন এবং স্মরণের প্রাচুর্য নিয়ে আসে। কুরআনে আল্লাহ বলেন:

হে ঈমানদারগণ, তোমরা আল্লাহকে অধিক পরিমাণে স্মরণ কর। (সূরা আহযাব: ৪১)

রমজান একজন মুসলিমকে সর্বশক্তিমান আল্লাহর সাথে তার সম্পর্ক সংশোধন করার সুযোগ দেয় এবং এর জন্য, যিকিরের মাধ্যমে তাঁকে স্মরণ করা এবং তাঁর আশীর্বাদ বেশি বেশি অর্জন করার চেয়ে উত্তম আর কি হতে পারে। মহান আল্লাহ আরো ঘোষণা করেনঃ

“অতঃপর আমাকে স্মরণ কর, আমিও তোমাদের স্মরণ করব।” (সূরা বাকরাহ : ১৫২)

আল্লাহকে পাবার সহজ পথ হোল পবিত্র কুরআন। কোরআন তেলাওয়াত এবং নামাজ পড়ার চেয়ে সর্বশক্তিমান আল্লাহর স্মরণ ও তার সাথে সংযোগ স্থাপনের আর কোন উপায় নেই। এর পাশাপাশি, পবিত্র রমজান মাসে আল্লাহর অতিরিক্ত অনুগ্রহ লাভের জন্য যিকিরে মগ্ন থাকতে হবে। নীচে আজকারের একটি তালিকা উল্লেখ করা হল যা আপনাকে এই পবিত্র মাসের সর্বাধিক নেকী পেতে সাহায্য করতে পারে।

আলহামদুলিল্লাহ
অনুবাদ: “সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর জন্য।”

আল্লাহর স্মরণ এবং তাও এই সুন্দর কথায় আল্লাহ কখনো ফিরাবেন না। যেমন কুরআনে আল্লাহ বলেন:

“আর স্মরণ কর যখন তোমার পালনকর্তা ঘোষণা করেছিলেন, “যদি তোমরা কৃতজ্ঞ হও, তবে আমি অবশ্যই তোমাদের অনুগ্রহ বাড়িয়ে দেব। কিন্তু যদি তোমরা অস্বীকার কর, তবে আমার শাস্তি কঠিন।” (সূরা ইব্রাহিম : ৭)

সুবহানআল্লাহ (x৩৩), আলহামদুলিল্লাহ (x৩৩), আল্লাহু আকবার (x৩৪)

সুবহানআল্লাহ: “আল্লাহ তাআলা পুতঃপবিত্র।”
আলহামদুলিল্লাহঃ “সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর জন্য।”
আল্লাহু আকবার: “আল্লাহ মহান।”

এই যিকির অনেক নিয়ামতের চেয়ে উত্তম এবং প্রয়োজনের সময় অনেক সাহায্যকারী।

আলী (রাঃ) থেকে বর্ণিত একটি হাদীস অনুসারে:

ফাতিমা তার হাতের পাথরের কলের খারাপ প্রভাব সম্পর্কে অভিযোগ করে নবীর কাছে গিয়েছিলেন। তিনি শুনেছিলেন যে নবী কয়েক জন দাসী পেয়েছেন। কিন্তু (যখন তিনি সেখানে আসেন) তিনি তাকে খুঁজে পাননি, তাই তিনি তার সমস্যার কথা আয়েশার কাছে উল্লেখ করেন। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এলে আয়েশা (রাঃ) তাকে বিষয়টি অবহিত করেন। ‘আলী (রাঃ) বলেন, “সুতরাং নবী আমাদের কাছে এসেছিলেন যখন আমরা শোবার জন্য বিছানায় গিয়েছিলাম। আমরা উঠতে চেয়েছিলাম (তাঁর আগমনে) কিন্তু তিনি বললেন, ‘তোমরা যেখানে আছো সেখানেই থাকো।” তারপর তিনি এসে আমার এবং তার মধ্যে বসলেন । তিনি বললেন, “আমি কি তোমাকে যা চেয়েছিলে তার চেয়ে উত্তম কিছুর দিকে নির্দেশ দেব? তুমি যখন বিছানায় যাবে তখন তেত্রিশ বার ‘সুবহানাল্লাহ’, তেত্রিশবার ‘আলহামদুলিল্লাহ’ এবং চৌত্রিশ বার ‘আল্লাহু আকবার’ বলবে।” এটা তোমার জন্য দাসের চেয়ে উত্তম।” (সহীহ বুখারীঃ ৫৩৬১)।

আয়াতুল কুরসি

“আল্লাহ ছাড়া অন্য কোন উপাস্য নেই, তিনি জীবিত, সবকিছুর ধারক। তাঁকে তন্দ্রাও স্পর্শ করতে পারে না এবং নিদ্রাও নয়। আসমান ও যমীনে যা কিছু রয়েছে, সবই তাঁর। কে আছ এমন, যে সুপারিশ করবে তাঁর কাছে তাঁর অনুমতি ছাড়া? দৃষ্টির সামনে কিংবা পিছনে যা কিছু রয়েছে সে সবই তিনি জানেন। তাঁর জ্ঞানসীমা থেকে তারা কোন কিছুকেই পরিবেষ্টিত করতে পারে না, কিন্তু যতটুকু তিনি ইচ্ছা করেন। তাঁর সিংহাসন সমস্ত আসমান ও যমীনকে পরিবেষ্টিত করে আছে। আর সেগুলোকে ধারণ করা তাঁর পক্ষে কঠিন নয়। তিনিই সর্বোচ্চ এবং সর্বাপেক্ষা মহান।” (সূরা বাকারা : ২৫৫)

যে ব্যক্তি আয়াতুল কুরসি পাঠ করবে, যা কুরআনের সর্বশ্রেষ্ঠ আয়াত হিসাবে পরিচিত, সে যখনই এই আয়াতটি পাঠ করবে, তার জন্য প্রচুর নেকী এবং সে ফেরেশতাদের সুরক্ষায় থাকবে।

সুবহানাল্লাহ ওয়াল হামদুলিল্লাহ, ওয়া লা ইলাহাইল্লাল্লাহ ওয়া আল্লাহু আকবার

অনুবাদ: “মহিমা আল্লাহর, এবং প্রশংসা আল্লাহর জন্য, এবং আল্লাহ ছাড়া ইবাদতের যোগ্য কেউ নেই, এবং আল্লাহ সর্বশ্রেষ্ঠ।”

আল্লাহ এই জিকির পছন্দ করেন এবং যারা আল্লাহর স্মরণে এই আয়াতটি ব্যবহার করে তাদের ক্ষমা করে দেন।

লা হাওলা ওয়া লা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ

অনুবাদ: “আল্লাহ ছাড়া কোনো ভরসা নেই; কোনো ক্ষমতা বা শক্তি নেই।”

এই আয়াতটি আল্লাহ ও তাঁর শক্তির কাছে পরম আত্মসমর্পণ। লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ। গুরুত্বপূর্ণ একটি আমল। এর ফজিলত ও সওয়াব অনেক বেশি। আমলটি করার ব্যাপারে হাদিসে অনেক বর্ণনা এসেছে।

আবু মুসা আশআরি (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুল (সা.) একবার আমাকে বললেন, ‘তোমাকে জান্নাতের অন্যতম ধনভাণ্ডারের কথা কি বলে দেব?’ আমি বললাম, অবশ্যই বলে দিন, হে আল্লাহর রাসুল! তিনি বললেন, لاَ حَوْلَ وَلاَ قُوَّةَ إِلاَّ بِاللهِ (লা হাওলা অলা ক্বুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ) (বুখারি, হাদিস : ২৯৯২; মুসলিম, হাদিস : ২৭০৪, তিরমিজি, হাদিস : ৩৩৭৪; আবু দাউদ, হাদিস : ১৫২৬

এই আয়াতটি ‘জান্নাতের ধন’ নামে পরিচিত এবং এই পবিত্র মাসে এটি প্রচুর পরিমাণে পাঠ করলেই কেবল সওয়াব ও আশীর্বাদ পাওয়া যাবে।

আস্তাগফিরুল্লাহ

অনুবাদ: “আমি আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।”

আল্লাহ তাদের ভালোবাসেন যারা তাঁর ক্ষমা চায়, আর তিনি ক্ষমা করতে ভালবাসেন কারণ তিনি সকলের ক্ষমাকারি। তিনি সর্বদা তাদের আশীর্বাদ করেন যারা প্রয়োজনের সময় এবং অন্যথায় তাকে খোঁজেন।

এটা সহজভাবে সত্য যে:

“শুধু আল্লাহর স্মরণেই তোমার অন্তর শান্তি পাবে।” (সূরা রাদ:২৮)

এবং প্রভুকে জানার আগ্রোহ চেয়ে আর কিছুই উত্তম হবে না যে তাঁর উম্মত শুধুমাত্র রোজা রেখে আল্লাহর প্রতি কর্তব্য পালন করছে না বরং প্রকৃতপক্ষে তাদের স্রষ্টার সাথে সম্পর্ক সংশোধন করার চেষ্টা করছে এবং যতটা সম্ভব জিকির করছে।

SOURCE ওমাম খালিদ 

Bangla Quran and Hadith Facebook comment

(Visited 81 times, 1 visits today)